2020 তে ভারতবর্ষের চাহিদাপূর্ণ চাকরী গুলির খবরাখবর

Best jobs in India in 2020 in bengali


নতুন বছর এসে গেছে এবং মিন্টলি আপনাকে এই নতুন বছরে জানাচ্ছে অনেক অভিনন্দন। 


বছর পরিবর্তনের সাথে সাথে চাকরী ক্ষেত্রগুলিরও পরিবর্তন ঘটছে।

এখনকার সময়ে দাঁড়িয়ে মানুষ নিজেদের স্কিলকে আরো উন্নত করে তুলছে যাতে করে উল্লেখযোগ্য ও চাহিদাপূর্ণ চাকরী গুলি সহজেই পাওয়া যায়। 


আজ আমরা 2020 তে উল্লেখযোগ্য চাকরী গুলি সম্বন্ধে খোঁজ দেব যা ভালো বেতন সহ সুদূর ভবিষ্যতে উন্নতিরও সুযোগ করে দেবে। 


আজকের বিষয়
1. ডাটা এনালাইসিস (Data Analysis)

2. এ.আই (A.I) বা ম্যাশিন লার্নিং (Machine learning)

3. মিডিয়া বায়িং কনসালটেন্ট (media buying consultant)

4. ফুল স্ট্যাক ডেভেলপার (full stack developer)

5. ক্লাউড ইনফ্রাস্ট্রাকচার কনসালটেন্ট (cloud infrastructure consultant)

 1. ডাটা এনালাইসিস (Data Analysis)

 বর্তমান যুগে ডাটা বা তথ্যই হলো এগিয়ে যাওয়ার মাপকাঠি।

কোনো কোম্পানী তাই এই ডাটাকে হাত ছাড়া করতে রাজি নন। তাই জন্য আগত সময়ে ডাটা এনালাইসিস এর কাজের চাহিদা ব্যাপক পরিমানে বৃদ্ধি হতে চলেছে। 


ডাটা এনালাইসিস কাকে বলে?

 লক্ষ লক্ষ মানুষ এখন নানান ভাবে সোশ্যাল মিডিয়ায় যুক্ত এবং প্রতিনিয়ত তারা বিভিন্ন রকম কাজ করে যাচ্ছে। 


এইসব কাজ গুলিই ডাটা হিসেবে গণ্য হয় যার ভিত্তিতে কোম্পানী গুলী আপনাকে তাদের দ্রব্য বিক্রি করতে সমর্থ হন। 


সমীক্ষা অনুযায়ী প্রতিদিন প্রায় 2.5 quintillion ডাটা উৎপন্ন হয়। 


ব্যাপার টা একটি সরল উদাহরণ দিয়ে বোঝা যাক। 


ধরুন আপনি amazon এ গিয়ে কোনো একটি প্রোডাক্ট সার্চ করলেন এবং সেটা কিনেও নিলেন। লখ্য করবেন এরপর থেকে সেই প্রোডাক্ট সম্পর্কিত আরো নানান ধরণের দ্রব্য, যা আপনার কাজে আসতে পারে অথবা আপনি কিনতে ইচ্ছুক থাকতে পারেন সেগুলির নোটিফিকেশন আসতে শুরু করছে। 

ডাটা এনালাইসিস (Data Analysis)
source


এর কারণ কি?

 আপনি যখন জিনিসটি প্রথম বার amazon থেকে কিনে ছিলেন সেটি একটি ডাটা হিসেবে গণ্য হয়েছিল এবং ডাটা এনালিস্ট রা সেটি কে amazon এর কাছে পাঠিয়ে ছিল যাতে তারা আপনাকে আরও একটি প্রোডাক্ট কিনতে বাধ্য করে। 


ডাটা এনালিস্ট দের কাজ


এর থেকেই বোঝা যাচ্ছে একজন ডাটা এনালিস্ট তথ্যকে সংগ্রহ ও এনালাইসিস করে এবং পরবর্তীতে তা বিভিন্ন কোম্পানির কাছে পাঠায় তাদের বিক্রয় বাড়ানোর জন্য।

আর তাই বলা বাহুল্য কোম্পানিগুলোতে ডাটা এনালিস্ট এর চাহিদা বেড়েই চলেছে। 


এই পেশায় যুক্ত হতে গেলে আপনাকে কম্পিউটার সায়েন্স নিয়ে পড়া আবশ্যিক। 
বিভিন্ন টুলস যেমন hive, hadoop, mapreduce, pig, spark ও বিভিন্ন প্রোগ্রামিং ল্যাংগুয়েজ যেমন  pearl, python, scala, SQL ইত্যাদি সম্পর্কিত জ্ঞান থাকতে হবে। 

2. এ.আই (A.I) বা ম্যাশিন লার্নিং (Machine learning)

এ.আই (A.I) বা ম্যাশিন লার্নিং (Machine learning)
source


এখনকার সবচেয়ে আলোচিত বিষয় হলো আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স।

মেশিনের মধ্যে মানবিক মূল্যবোধ কে প্রবেশ করিয়ে বিভিন্ন কাজে তাকে ব্যবহার করা। 


এখন অনেক জায়গাতেই এই যান্ত্রিক মানব বা রোবোট দের ব্যবহার শুরু হয়েছে। 
সুতরাং বোঝাই যাচ্ছে এই ক্ষেত্রে কতো টা উন্নতির পথ প্রশস্ত। 


এই লাইনের জন্য আপনার কম্পিউটার সায়েন্স এ ডিগ্রির প্রয়োজন। সাথে সাথে বিভিন্ন প্রোগ্রামিং ল্যাংগুয়েজ যেমন java, python, scala ইত্যাদির ধারণা থাকা জরুরী। 

3. মিডিয়া বায়িং কনসালটেন্ট (media buying consultant)


 মিন্টলির আগের ব্লগে ডিজিটাল মার্কেটিং সম্পর্কে অনেক আর্টিকেল লেখা হয়েছে। মিডিয়া বাইয়িং কনসালটেন্ট এরই একটি অংশ । 


ডিজিটাল মার্কেটিং কি ও এর চাহিদা এখানে ক্লীক করে পড়ুন। 


মিডিয়া বায়িং হলো এমন একটি চাকরি যেখানে আপনি সরাসরি ভাবে কোনো মার্কেটিংয়ের অংশ নন।  শুধুমাত্র আপনার মতামত ও পরামর্শের ভিত্তিতে একটি নির্দিষ্ট ফি কোম্পানি আপনাকে দেয়।

 ইদানিং কালে এই চাকরিটির চাহিদা সবচেয়ে বেড়েছে তার একটি অন্যতম কারণ হতে পারে , ঘরে বসে এখন ভিডিও কনফারেন্স এর মাধ্যমেও কন্সাল্ট করানো সম্ভব।  অতএব ফ্রিল্যান্স পাল্ফট্ফর্মের জন্য উপযুক্ত একটি চাকরি হলো মিডিয়া বায়িং কনসালটেন্ট। 

  4. ফুল স্ট্যাক ডেভেলপার (full stack developer)

ফুল স্ট্যাক ডেভেলপার (full stack developer)
source


ওয়েব ডেভেলপার বা ওয়েব ডিগনারদের কথা আগে আমরা শুনেছি। 

এখানে যারা ওয়েবসাইটের কাঠামো তৈরী করে তাকে আরো আকর্ষণীয় করে তোলাই ওয়েব ডিসাইনার দের কাজ।  অপর দিকে ওয়েবসাইটের প্রোগ্রামিং কার্যকলাপ দেখা শোনার ভার একজন ওয়েব ডেভেলপার এর।

 এক্ষেত্রে কোম্পানিকে একটি কাজের জন্য দুটি পেশার মানুষদের নিয়োগ করতে হয়। 

এই অসুবিধার কথা মাথায় রেখেই ফুল স্ট্যাক ডেভেলপারদের কাজ হয় ওয়েবসাইটের সামনের ও পিছনের কার্যকলাপ দুটোই সমান ভাবে সামলানো।  এতে করে একই কাজের জন্য দুজন পেশার মানুষের প্রয়োজন হয় না। 


শুনতে কঠিন লাগলেও কম্পিউটার প্রোগ্রামিং কিন্তু সত্যি খুবই মজাদার একটি ক্ষেত্র এবং কোনো সুপ্রতিষ্ঠিত প্রতিষ্ঠান থেকে যেকেউ এই কোর্সটি শিখতে পারেন। 


  5. ক্লাউড ইনফ্রাস্ট্রাকচার কনসালটেন্ট (cloud infrastructure consultant) 


সর্বশেষ যে বিষয়টি নিয়ে আলোচনা করবো  তা হলো ক্লাউড ইনফ্রাস্ট্রাকচার।  


ক্লাউড কম্পিউটিং কাকে বলে ?


 ক্লাউড ইনফ্রাস্ট্রাকচার কনসালটেন্ট (cloud infrastructure consultant)
source


ক্লাউড কম্পিউটিং হলো এমন একটি টেকনোলজি যার মাধ্যমে কোনো ব্যক্তি ইনস্টলেশন ছাড়াই কোনো এপ্লিকেশন ব্যবহার করতে পারেন অথবা ইন্টারনেটের মাধ্যমে যেকোনো ফাইল যেকোনো কম্পিউটার থেকে চালনা করতে পারেন। 


ক্লাউড সিস্টেমের মাধ্যমে ডাটা বা ইনফরমেশন এই বিশ্ব ব্রহ্মান্ড থেকে হারিয়ে যায় না।  তা এই ক্লাউড স্টোরেজে সুরক্ষিত থাকে। 


এই ধরণের বিষয়ভিত্তিক কনসালটেন্ট পরিষেবাকে ক্লাউড ইনফ্রাস্ট্রাকচার কোসালট্যান্ট বলা হয় এবং ২০২০ তে এই চাকরির কদর বাড়তে চলেছে। 

এইছিলো আমাদের দ্বারা নির্বাচিত ২০২০র ৫ টি প্রধান চাকরির সন্ধান।  


আজকের প্রতিবেদনটি আপনাদের কেমন লাগলো তা অবশ্যয়ী আমাদের জানান।
এবং নিয়মিত চাকরির খবর বাংলায় পেতে মিন্টলি কে সাবস্ক্রাইব করুন।